logo

শনিবার ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ৩০ পৌষ ১৪২৪, ২৫ রবিউস সানি ১৪৩৯

ছোট ভাইদের কাছে হারল বড় ভাই পাকিস্তান
১৩ জানুয়ারি, ২০১৮
স্পোর্টস ডেস্ক
নিউজিল্যান্ডে চলছে পাকিস্তানের জাতীয় দলের পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। এই নিউজিল্যান্ডেই আজ থেকে শুরু হয়েছে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ। একই দিনে নিউজিল্যান্ড থেকে দুটি খারাপ খবর শুনতে হলো পাকিস্তানি সমর্থকদের।

জাতীয় দল তাদের ২৬ বছরের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দলীয় রানের রেকর্ড গড়ে। একই দিনে আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনে পাকিস্তান অ-১৯ দলের বিপক্ষে পাঁচ উইকেটের জয় পেয়েছে আফগানিস্তান অ-১৯ দল। ৭৬ রান করে ম্যাচ সেরা হয়েছেন আফগানিস্তানের ডারউইশ রাসুলি। গ্রুপ ‘ডি’তে এই দুল ছাড়া অন্য দল দুইটি হচ্ছে শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ড।

দুর্দান্ত ফর্ম নিয়ে বিশ্বকাপে খেলতে গিয়েছে আফগানিস্তান। বাংলাদেশে এসে সিরিজ জিতে গেছে। নিউজিল্যান্ডেও প্রস্তুতি ম্যাচগুলোতে টানা জয় পেয়েছে স্থানীয় দলগুলোর বিপক্ষে। তবু পাকিস্তান বলে কথা। ক্রিকেটীয় সংস্কৃতিতে দেশটি তো আফগানিস্তানের প্রায় ‘বড় ভাই’! কিন্তু কদিন আগে এশিয়া কাপ ফাইনালের পুনরাবৃত্তি ঘটল। আফগানিস্তানের কাছে আবারো হারল পাকিস্তান।

শনিবার ওয়াঙ্গারেইতে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৪৭.৪ ওভারে ১৮৮ রান সংগ্রহ করে অলআউট হয়ে যায় পাকিস্তান। জবাবে ২.৩ ওভার হাতে রেখে ৫ উইকেটের জয় নিশ্চিত করে এশিয়ার যুবা চ্যাম্পিয়নরা।

টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে শুরু থেকেই বিপর্যয়ে পড়ে পাকিস্তান। নাভীন-উল-হক নিজের প্রথম ওভারেই দুটি উইকেট তুলে নেন। নিয়মিত বিরতিতে পাকিস্তান উইকেট হারালেও ব্যতিক্রম ছিলেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান রোহাইল নাজির। ৮১ রানের ইনিংস খেলে পাকিস্তানের ইনিংসকে সম্মানজনক জায়গায় নিয়ে যান এ ব্যাটসম্যান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩০ রান করে আলী জয়রাব।

ইদানীং আফগানিস্তান দল মানেই যেন লেগ স্পিনারদের চারণভূমি। রশিদ খান ছাড়াও জাতীয় দলের আশপাশে ঘোরাঘুরি করছে আরো কিছু নাম। অনূর্ধ্ব-১৯ দলেই আছেন দুজন। একজন প্রথাগত লেগি কায়েস আহমেদ। অন্যজন চায়নাম্যান জহির খান। এ দুই লেগ স্পিনার আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে রেখেছিলেন পাকিস্তানকে। কায়েস ৩৮ রান দিয়ে ৩ উইকেট পেয়েছেন, জহির ৩৯ রানে ১। সঙ্গে আজমাতুল্লাহ ওমারজাইয়ের মিডিয়াম পেসে ৩ উইকেট হারিয়েছে পাকিস্তান।

পরে আফগানিস্তান ব্যাট করতে নেমে ৫০ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারায় আফগানিস্তানের যুবারা। কিন্তু মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান দারউইস রসুলি ছিলেন দায়িত্বশীল। ৪৭.৩ ওভারে পাঁচ উইকেট হারিয়ে ৭৬ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন দারউইস। ৪৬ রান আসে ইকরাম আলীর ব্যাট থেকে। ৩১ রান করে ওপেনার রহমতউল্লাহ।

পাকিস্তানের পক্ষে শাহীন শাহ আফ্রিদি ১টি, হাসান খান ২টি ও মোহাম্মদ তহা ১টি করে উইকেট নেন।

সর্বশেষ খবর

খেলায় খেলায় এর আরো খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by