logo

শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারি ২০১৬ . ১৬ মাঘ ১৪২২ . ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৭

বই বুঝে নিন টাকা পরে দিন
২৯ জানুয়ারি, ২০১৬
নাদিম মজিদ
‘জ্বি, আপনাকে আমি চিনি? কারণ, আপনার সঙ্গে আমার জন্ম জন্মান্তরের সম্পর্ক রয়েছে।’ -১৬২৯৭ নম্বরে ফোন করলেই ক্যাবিক ভাষায় এ ধরনের কণ্ঠ আপনাকে স্বাগত জানাবে। এ নাম্বারটি জনপ্রিয় বইয়ের প্রতিষ্ঠান রকমারি ডটকমের কলসেন্টারের নাম্বার। এই নম্বরে ফোন করেই পাঠক তার পছন্দের বই সংগ্রহ করে থাকেন। বইপ্রিয় পাঠকদের কাছে, খুব অল্প সময়ে রকমারি ডটকম বিশেষ একটি স্থান দখল করে নিয়েছে। বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের হাজারো বইয়ের সমাহার নিয়ে পাঠকদের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে নিত্য নতুন বই। ‘রকমারি’ যে শুধু দেশের সীমানার ভিতরে সীমাবদ্ধ রয়েছে, এমনটি নয়। দেশের বাইরের পাঠকদের কাছেও ‘রকমারি’ তাদের বইয়ের সাম্রাজ্য নিয়ে উপস্থিত হচ্ছেন।

বইয়ের প্রতি ভালোবাসা থেকে মাহমুদুল হাসান সোহাগের নেতৃত্বে ২০১২ সালের ১৯ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয় রকমারি ডটকম। ‘বই বুঝে নিন, টাকা পরে দিন’Ñ এ সেøাগানে প্রতিষ্ঠিত রকমারি আজ সারাদেশের বইপ্রেমীদের কাছে পরিচিত এক নাম। কেন বই নিয়ে এমন উদ্যোগ নিয়েছেন জানতে চাইলে মাহমুদুল হাসান সোহাগ জানান, ‘ছোটবেলা থেকে বইয়ের প্রতি আমার ভালো লাগা ছিল। আলোকিত মানুষ গড়তে চাইলে বইয়ের বিকল্প নেই। ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান হিসেবে বই রাখার কারণ ছিল বইয়ের ক্রেতারা অনেক বেশি ভদ্র হয়। কাপড় বা অন্য কিছুর ক্ষেত্রে গ্রাহক সহজে খুঁত ধরতে পারে। কিন্তু বইয়ের ক্ষেত্রে এমন খুব কম হয়।’ মাহমুদুল হাসান সোহাগ জন্মেছেন জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি উপজেলায়। পড়াশোনায় ভালো ছিলেন। পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে বৃত্তি পেয়েছিলেন। স্কুলে পড়া অবস্থায় নিয়মিত পত্রিকা পড়তেন। বইয়ের প্রতি ভালো লাগা থেকে বৃত্তির টাকা দিয়ে সংগ্রহ করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ-শরৎচন্দ্রের রচনাবলী। এসএসসি পরীক্ষায় ঢাকা বোর্ডে পঞ্চম এবং এএইচএসসি পরীক্ষায় চতুর্থ হন। প্রকৌশলী হওয়ার ইচ্ছা থেকে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। রকমারিতে বই অর্ডারে দুই ধরনের সুযোগ আছে। অনলাইনে বা কলসেন্টারে ফোন করে। প্রতিষ্ঠা থেকে এ প্রতিষ্ঠান দারুণ সাড়া ফেলেছে। মাহমুদুল হাসান সোহাগের নেতৃত্বে রকমারি ডট কমের উদ্যোক্তা সংখ্যা ৫ জন। বর্তমানে এ প্রতিষ্ঠানে কাজ করছেন ১০০ জন কর্মচারী। ২-১০ দিনের মাঝে গ্রাহকের ঠিকানায় পৌঁছে দেয় বই। মান ধরে রাখার আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে রকমারি ডট কম। সোহাগ জানান, ‘ঢাকার ভেতরে আমাদের ১৭ জন কর্মী বই পৌঁছে দেয়ার কাজটি করে। ঢাকার বাইরে কুরিয়ার বা পোস্ট অফিসের সাহায্য নিয়ে থাকি।’ রকমারির রয়েছে লক্ষাধিক বইয়ের বিশাল সংগ্রহ।  বইয়ের গ্রাহকের বিচারে ৫০ শতাংশের বেশি গ্রাহক ঢাকা বিভাগে রয়েছে। দ্বিতীয় অবস্থানে চট্টগ্রাম বিভাগ, তৃতীয় অবস্থানে রাজশাহী, রংপুর এবং সিলেটের মাঝে উঠানামা করে। সবচেয়ে কম বরিশাল বিভাগে। বাংলাদেশের বাইরে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, মধ্যপ্রাচ্যসহ ১৮টি দেশে বই বিক্রি করে থাকে রকমারি। রকমারির বই বিক্রি নিয়ে একটি মজার ঘটনা জানতে চাইলে রকমারিডটকমের প্রতিষ্ঠাতা সোহাগ জানান, ‘কয়েক দিন আগে আমাদের ঠিকানায় একটি চিঠি আসে। চিঠি পাঠিয়েছেন ৭ম শ্রেণির এক ছাত্র। সে দরখাস্ত আকারে লিখে পাঠায় তার কাক্সিক্ষত বইয়ের নাম। এ ঘটনা আমাদের রকমারিতে প্রথম। আমরা তাকে বইটি উপহার দিয়েছি। আমাদের কলসেন্টারে নতুন যারা যোগ দেয়, তাদের প্রাথমিক কিছু প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি। প্রশিক্ষণের মাঝামাঝি সময়েও কখনো কখনো তাদের বসতে হয়। একবার এক গ্রাহক ফোন করে জানতে চাইল, ‘আনিসুল হকের ‘মা’ আছে। আমাদের কলসেন্টারে যোগ দেয়া নতুন এক কর্মী উত্তর দিলেন, এটা আনিসুল হকের বাসা না।’

রকমারির চ্যালেঞ্জের কথা জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘ঢাকার বাইরে আমরা কুরিয়ার এবং পোস্ট অফিসের সাহায্যে পাঠিয়ে থাকি, সেখানে ঠিক সময়ে বই পৌঁছানো নিশ্চিত করা যায় না। দেশে এখন পাঁচ শতাধিক প্রকাশনা সংস্থা রয়েছে, বেশিরভাগ এখনো ম্যানুয়েল। অনেক সময় বই আছে ধরে নিয়ে অর্ডার নিই, কিন্তু সেসব প্রকাশনা সংস্থায় থেকে নিশ্চিত করতে গিয়ে শুনি, কিছু কিছু বই বিক্রি হয়ে গেছে।’

রকমারির ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমাদের স্বপ্ন দেশের সব মানুষকে আমাদের গ্রাহক বানানো। তাদের সহজে পছন্দের বই পৌঁছে দিতে চাই। আমাদের আরেকটি পরিকল্পনা হলো কৃষিপণ্যকে সরাসরি গ্রাহকের হাতে পৌঁছে দেয়া। বর্তমানে কৃষকরা ন্যায্যমূল্য পায় না। আবার মধ্যস্বত্বভোগীদের কারণে ক্রেতার হাতে পৌঁছানোর আগেই পণ্যের দাম বেড়ে যায়।’

সর্বশেষ খবর

গতি এর আরো খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by