logo

শনিবার ২০ অক্টোবর ২০১৮, ০৫ কার্তিক ১৪২৫, ০৯ সফর ১৪৪০

প্রধানমন্ত্রীর সৌদি আরব সফর
নতুন সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে
২০ অক্টোবর, ২০১৮
নিউজ ডেস্ক
বাংলাদেশের উন্নয়নে অংশীদার হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বিন আবদুল আজিজ। এটি অবশ্যই খুবই আশাবাদী হওয়ার মতো একটি খবর। সৌদি আরব সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে সৌদি যুবরাজ এ আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। এ লক্ষ্যে তিনি বাংলাদেশে একটি বিশেষজ্ঞ দল প্রেরণ এবং তাদের মূল্যায়ন ও সুপারিশের ভিত্তিতে বাংলাদেশের কোন্ কোন্ ক্ষেত্রে বিনিয়োগ প্রয়োজন, তা নির্ধারণ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানিয়েছেন।


প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যুবরাজের বৈঠকে মূলত দুটি বিষয় গুরুত্ব পেয়েছে। এর একটি হল বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্পর্কিত, অন্যটি প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত। যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বিন আবদুল আজিজ তার উদার মনোভাব এবং সাম্প্রতিক সময়ে সৌদি সমাজব্যবস্থায় বিভিন্ন সংস্কার কাজের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মনোযোগ আকর্ষণ করেছেন। তাকে দেশটির ক্ষমতাবলয়ের শীর্ষস্থানে অবস্থানকারীদের একজন বলে মনে করা হয়। বাংলাদেশে বিনিয়োগ সংক্রান্ত তার আগ্রহ ধরে রাখা সম্ভব হলে দেশে বিদেশি বিনিয়োগের নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে, এতে কোনো সন্দেহ নেই।

মুসলিমপ্রধান দেশ হিসেবে বাংলাদেশের সঙ্গে সৌদি আরবের সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক অত্যন্ত প্রাচীন। প্রতি বছর লক্ষাধিক মানুষ বাংলাদেশ থেকে পবিত্র হজব্রত পালন করতে সৌদি আরব যান। তাছাড়া সৌদি আরব হচ্ছে আমাদের বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সর্ববৃহৎ বাজার। সেখানকার শ্রমবাজারে সর্বোচ্চসংখ্যক বাংলাদেশীর কর্মসংস্থান হয়েছে। দেশটির সঙ্গে সম্পর্ক আরও জোরদার হলে এ বাজার আরও সম্প্রসারিত হতে পারে।

তবে সে দেশে চাকরির বাজার সম্প্রসারণ, চাকরিরত বাংলাদেশীদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির পাশাপাশি সৌদি বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে হলে ব্যাপক কূটনৈতিক তৎপরতা প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রীর রিয়াদ সফর এবং সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বিন আবদুল আজিজের সঙ্গে তার বৈঠকের পর দেশটির সঙ্গে সম্পর্কের যে নতুন দ্বার উন্মোচিত হয়েছে, তা ফলপ্রসূ করার ক্ষেত্রে সেখানকার বাংলাদেশী দূতাবাস ও কমিউনিটির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। আমরা আশা করব, সবাই নিজ নিজ দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে আন্তরিকতার পরিচয় দেবেন।

একইসঙ্গে দেশে বিনিয়োগের প্রতিকূল অবস্থা এবং তা নিরসনের ব্যাপারেও আমাদের ভাবতে হবে। দেশে বর্তমানে রাজনৈতিক অস্থিরতা বিরাজ না করলেও গ্যাস ও বিদ্যুতের স্বল্পতা, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিসহ বিভিন্ন কারণে নতুন বিনিয়োগে দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তারা আগ্রহী হচ্ছেন না। দেশে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার পাশাপাশি সব ধরনের হয়রানিমূলক কর্মকাণ্ড কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ এবং বিদ্যুৎ ও গ্যাস সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখতে হবে।

একইসঙ্গে রেল, সড়ক ও নৌপথের উন্নয়ন ছাড়াও দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোয় যে কোনো ধরনের অপতৎপরতা বন্ধ এবং দুর্নীতি-অনিয়ম রোধের পদক্ষেপ নিতে হবে। এতে সৌদি আরবসহ দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তারা নতুন বিনিয়োগে আগ্রহী হবেন বলে আমাদের বিশ্বাস। আমরা আশা করি, প্রধানমন্ত্রীর রিয়াদ সফরের মধ্য দিয়ে দু’দেশের সম্পর্ক এগিয়ে নেয়ার এবং দেশে বিনিয়োগের যে নতুন সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে, তা যথাযথভাবে কাজে লাগানো হবে।

সর্বশেষ খবর

শিরোনাম এর আরো খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by