logo

শুক্রবার ১৭ নভেম্বর ২০১৭, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৭ সফর ১৪৩৯

শিরোনাম

রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে জাতিসংঘে প্রস্তাব পাস প্রধানমন্ত্রীর সফলতা
১৭ নভেম্বর, ২০১৭
মাদারীপুর প্রতিনিধি
রোহিঙ্গা সংকটের পরিপ্রেক্ষিতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘে ইসলামী সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) প্রস্তাব পাস হওয়ার বিষয়টিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কূটনৈতিক সফলতা বলে উল্লেখ করেছেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান।

আজ শুক্রবার সকালে মাদারীপুরে আছমত আলী খান পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের নতুন ভবনের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের কাছে নৌমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

জেলা পরিষদের অর্থায়নে এক কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে ভবনটি নির্মিত হচ্ছে।

রোহিঙ্গা সংকটের বিষয়ে নৌমন্ত্রী বলেন, ‘আমি মনে করি, সমস্যা দীর্ঘদিন স্থায়ী হতে পারে না, সমস্যা সমাধান হবেই। জাতিসংঘে এই রেজুলেশনের (প্রস্তাব) মধ্য দিয়ে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে রাজনৈতিক দূরদর্শিতা, যে কূটনৈতিক তৎপরতা দেখিয়েছেন, তা সফল হয়েছে।’

শাজাহান খান জানান, জাতিসংঘের ১৩৫টি দেশ এ প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয়। ১০টি দেশ বিপক্ষে এবং ২৬টি দেশ নীরব ছিল। এ থেকে বোঝা যায়, রোহিঙ্গাদের হত্যা, নির্যাতন বন্ধ করে নাগরিকত্ব দিয়ে ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগ অব্যাহত রয়েছে।

নৌমন্ত্রী আরো বলেন, এতিমদের টাকা আত্মসাতের মামলায় আদালত যদি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায় দেন, সেখানে কারো কিছু করার নেই। আর নির্বাচনে আসা-না আসা আওয়ামী লীগের ওপর নির্ভর করে না। এটা যার যার দলের ব্যাপার।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাদারীপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক সৈয়দ ফারুক আহমেদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) উত্তম প্রসাদ পাঠক, মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল হাসান, জেলা পরিষদের সদস্য সৈয়দ বাশার, পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা খলিলুর রহমান খান, জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক, আছমত আলী খান পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ হুমায়ুন কবির।

মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে নির্যাতনের শিকার হয়ে গত ২৫ আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ছয় লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। জাতিসংঘ এটিকে ‘জাতিগত নিধন’ বলে আখ্যায়িত করেছে।

রাখাইনের মংডু জেলার কয়েকটি স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার জেরে অভিযান শুরু করে দেশটির সেনাবাহিনী। অভিযানে রোহিঙ্গা নারী-শিশুদের ধর্ষণ, হত্যাসহ তাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া হয়। রোহিঙ্গা সংকটে নীরব ভূমিকা পালনের জন্য বিশ্বজুড়ে সমালোচিত হয় দেশটির নোবেলজয়ী নেত্রী অং সান সু চি।

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by