logo

মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৭ জমাদিউল-আউয়াল ১৪৩৯

খালেদা জিয়াকে কোনো মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮
নিজস্ব প্রতিবেদক
বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অন্য কোনো মামলাতেই গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তিনি জানান, কেবল জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় আদালতের রায়ে খালেদা জিয়া কারাগারে আছেন।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিজ কার্যালয়ে এক তাৎক্ষণিক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কোনো মামলাতেই গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি। তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে বলে যেসব সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে, তা সত্য নয়।’

খালেদা জিয়া একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘তিনি বর্তমানে একটি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে আছেন। এ ছাড়া তাঁর বিরুদ্ধে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি ও গ্যাটকো দুর্নীতি মামলায় জামিনে রয়েছেন। এসব মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি। তবে আজকে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে যে, খালেদাকে জিয়াকে কয়েকটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। এ সংবাদ সঠিক নয়। তাঁকে কোনো মামলাতেই গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি।’

খালেদা জিয়াকে পরিত্যক্ত কারাগারে রাখা হয়েছে বলে বিএনপির নেতাদের অভিযোগের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া একটি বৃহত্তর রাজনৈতিক দলের প্রধান।

তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তাঁর একটি সামাজিক মর্যাদা রয়েছে। তাঁর সামাজিক মর্যাদা বিবেচনা করে তাঁকে এখানে বিশেষ মর্যাদায় রাখা হয়েছে। কাশিমপুর কারগারে অনেক কয়েদি রয়েছে। তা ছাড়া কারাগারটি অনেক দূরে। যাতায়াতের পথও আরামদায়ক নয়। এ জন্য তাঁকে এখানে বিশেষ বন্দির মর্যাদায় রাখা হয়েছে। তাঁর প্রাপ্য সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা তাঁকে দেওয়া হচ্ছে।’

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করেন বিশেষ আদালতের বিচারক ডা. মো. আখতারুজ্জামান। রায়ে তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন। এ ছাড়া বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

রায় ঘোষণার পর পরই খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by