logo

শনিবার, ১৪ এপ্রিল ২০১৮, ১ বৈশাখ ১৪২৫, ২৬ রজব ১৪৩৯

ঢাবি ভিসির বাসভবনে তাণ্ডব
সুনির্দিষ্টভাবে চিহ্নিত হওয়ার পরই গ্রেফতার
১৪ এপ্রিল, ২০১৮
নিউজ ডেস্ক
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামানের বাসভবনে তাণ্ডবে জড়িত কাউকে সুনির্দিষ্টভাবে চিহ্নিত করা যায়নি। চিহ্নিত হওয়ার পরই তাদের গ্রেফতার করা হবে। পুলিশের উচ্চ পর্যায়ের একটি সূত্র শুক্রবার যুগান্তরকে এসব তথ্য জানিয়েছে। সূত্র জানায়, ভিসির বাসভবনে হামলার ঘটনায় আন্দোলনকারী সাধারণ শিক্ষার্থীদের কাউকে গ্রেফতার করতে চায় না পুলিশ। তবে হামলাকারীদের ছাড় না দেয়ার ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে পুলিশ। পুলিশের ধারণা, এটি একটি পূর্ব পরিকল্পিত হামলা। হামলাকারীরা প্রশিক্ষিত। কারণ ভিসির বাসভবন এলাকা থেকে যেভাবে সিসি ক্যামেরার হার্ডডিস্ক খুলে নেয়া হয়েছে, প্রশিক্ষিত লোক ছাড়া এভাবে তা খুলে নেয়া সম্ভব নয়। তাই বিষয়টির গভীর তদন্ত চলছে। হামলাকারীদের সুনির্দিষ্টভাবে চিহ্নিত করার পরই গ্রেফতার করা হবে।

জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের অতিরিক্ত ডিআইজি (ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড স্পেশাল অ্যাফেয়ার্স) মনিরুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে থানা পুলিশের পাশাপাশি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তদন্ত করছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অন্যান্য ইউনিটের পক্ষ থেকে ছায়া তদন্ত চলছে। পুলিশ সদর দফতর থেকে বিষয়টি কঠোরভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে যেন ছাড় দেয়া না হয় সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রাথমিক তদন্তে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী হামলাকারীরা প্রশিক্ষিত এবং পেশাধার। তবে এখনও সুনির্দিষ্টভাবে তাদের চিহ্নিত করা যায়নি।

ডিবির অতিরিক্ত উপ-কমিশনার রাজিব আল মাসুদ যুগান্তরকে বলেন, ‘আমার জানা মতে এ ঘটনায় এখনও কাউকে চিহ্নিত করা যায়নি। কেবল আলামত সংগ্রহের কাজ চলছে। আমি পুরো ঘটনার তদন্তের সঙ্গে জড়িত নই। একটি অংশের তদন্ত করছি।’

মামলার তদন্ত কমকর্তা শাহবাগ থানার পরিদর্শক (অপারেশন্স) আবুল কালাম আজাদ বলেন, স্পর্শকাতর বিষয় হওয়ায় অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে তদন্ত কাজ চলছে। এখনও বলার মতো কোনো আপডেট নেই- থাকলে অবশ্যই গণমাধ্যমকে জানানো হবে।

ডিএমপি কমিশনারের দেয়া তথ্য অনুযায়ী হামলাকারীরা চিহ্নিত। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এ বিষয়ে আপনার বক্তব্য কি- জানতে চাইলে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, ‘আমার কাছে এ বিষয়ে সুনির্দষ্ট তথ্য নেই। এ নিয়ে কথা বলা রিস্ক।’

কোটা সংস্কার আন্দোলন চলাকালে ৮ এপ্রিল রাত দেড়টার দিকে ভিসি ভবনের প্রায় ১০ ফুট উঁচু দেয়ালের পূর্ব দিকের কাঁটা তার ছিঁড়ে ভেতরে ঢুকে প্রথমে ৫০-৬০ জনের একটি দল। এরপর তারা ভেতরের মূল গেটের তালা ভেঙে ফেলে। এরপর আরও অনেকে ঢুকে পড়ে। তারা লাঠিসোটা, রড নিয়ে বাড়িতে ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। বাড়িতে থাকা টাকা-পয়সা স্বর্ণালঙ্কার লুটে নেয়। বাড়ির সামনে আসবাবপত্রে আগুন দেয়। বাড়ির পেছনে থাকা দুটি গাড়ি পুড়িয়ে দেয়।

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by