logo

শুক্রবার, ২০ এপ্রিল ২০১৮, ৭ বৈশাখ ১৪২৫, ৩ শাবান ১৪৩৯

উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে গাফিলতি মেনে নেওয়া হবে না
আনোয়ার হোসেন মঞ্জু
২০ এপ্রিল, ২০১৮
নউজ ডেস্ক
জাতীয় পার্টি-জেপি’র চেয়ারম্যান ও পানিসম্পদ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেছেন, উন্নয়নের জন্য যে সম্পদ বরাদ্দ দেওয়া হয় তার উত্স জনগণের প্রদত্ত ট্যাক্স। করদাতাদের এ সম্পদের সদ্ব্যবহার নিশ্চিত করাসহ তার ন্যায্য হিস্যা আদায়ে জনগণকেই সচেতন ও ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। তিনি বলেন, সকল স্তরের প্রকল্প বাস্তবায়নে কেন্দ্রীয় যে উন্নয়ন বরাদ্দ আসে তার যথাযথ ব্যবহারের ক্ষেত্রে জনগণ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সব সময় সতর্ক নজর রাখা বাঞ্ছনীয়। এ ক্ষেত্রে কোনো গাফিলতি মেনে নেওয়া হবে না।

গতকাল বৃৃহস্পতিবার বিকালে পিরোজপুরের ইন্দুরকানি উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়নের চন্ডীপুর হাইস্কুল মাঠে জনাকীর্ণ সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী আরো বলেন, উন্নয়ন নিয়ে বিভাজনের রাজনীতি করা ঠিক নয়। পুরোনো অভ্যাস পরিবর্তন করতে হবে। সবাইকে এ কথা ভাবতে হবে যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে এ এলাকাসহ সারা দেশে কল্পনাতীত উন্নয়ন চলছে।

পানিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, যেসব এলাকায় ঝগড়া-বিবাদ-কাইজ্যা লেগে থাকে সেখানে সরকার, উন্নয়ন সহযোগী সংগঠন, বিদেশি উন্নয়ন সংস্থা সবার মধ্যে অনীহা দেখা দেয়। স্বাধীনতার পরের রাজনীতি হবে কাজের, ফাঁকাবুলি বা চাপাবাজির রাজনীতি আর নাই। পাশাপাশি উগ্রতা, সন্ত্রাস, অস্থিরতা বর্জন করে এলাকায় শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রেখে উন্নয়ন কাজ করা গেলে জনগণ উপকৃত হয়। উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়নে নিয়োজিত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যাতে বিরক্ত না হয়, সেদিকে এলাকার জনগণকে সতর্ক থাকতে হবে। এ ক্ষেত্রে দায়িত্বশীল আচরণ করা আবশ্যক। যে সমস্ত সরকারি সংস্থা এলাকার উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করে তাদেরও মনে রাখতে হবে এটি তাদের বিভাগীয় দায়িত্ব এবং তা স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও দায়িত্বশীলতার সাথে সম্পন্ন করতে হবে। কেননা স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা, রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট, সাইক্লোন শেল্টার, ভেড়িবাঁধ এসব না থাকলে জনগণ দুর্ভোগ পোহায়।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, ২০০৭ সালে এ এলাকায় সিডরে বহু ভেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমি পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকাকালে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ দিয়ে যাতে পানি ঢুকতে না পারে তার জন্য এখানকার বাঁধসমূহ সাময়িকভাবে মেরামত করার ব্যবস্থা করেছি। আল্লাহর ইচ্ছায় পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়ে উপকূলবর্তী এ এলাকার ভেড়িবাঁধসমূহ স্থায়ীভাবে নির্মাণ কাজ শুরু করেছি। তিনি বলেন, আমরা ৩২/৩৩ বছর ধরে মানুষের সেবার সুযোগ পেয়েছি। প্রাপ্ত ক্ষমতার সদ্ব্যবহার করেছি এবং আগামীতেও করে যাব। সবাই যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে তাহলে কাজ করা সহজ হয়। এই সময়কালে যেখানেই গিয়েছি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে এসেছি। সব সময় বলার চেষ্টা করেছি সম্মিলিত শক্তি দিয়ে জনগণের ন্যায্য অধিকার আদায় করা সম্ভব।

বালিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কবির হোসেন বয়াতীর সভাপতিত্বে সুধী সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন পিরোজপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন মহারাজ, ইন্দুরকানি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মতিউর রহমান, উপজেলা জেপি’র সভাপতি আসাদুল কবির তালুকদার স্বপন, সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মঞ্জু, যুবলীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক একরামুল সিকদার, যুব সংহতির সভাপতি রিয়াজ আহমেদ, ছাত্রলীগের সভাপতি এইচ এম শাহীন, ছাত্র সমাজের জিয়াউল আহসান জুয়েল, মীর মোহাম্মদ জসীম, ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান হাওলাদার প্রমুখ।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা জেপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক আতিকুল ইসলাম তালুকদার উজ্জল, ধাওয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও ভান্ডারিয়া জেপি’র সদস্য সচিব সিদ্দিকুর রহমান টুলু, পাড়েরহাট ইউপি চেয়ারম্যান ও ইন্দুরকানি জেপি’র সহ-সভাপতি গোলাম সরোয়ার বাবুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মৃধা, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ‘ডাক দিয়ে যাই’র নির্বাহী পরিচালক মো. শাহজাহান গাজী, উপজেলা মহিলা জাতীয় পার্টি-জেপি’র সভানেত্রী শারমীন হোসেন, সাধারণ সম্পাদিকা সুলতানা রাজিয়া রানী প্রমুখ।

এর আগে পানিসম্পদ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এখানে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের ব্যবস্থাপনায় ইন্দুরকানি উপজেলার পাড়েরহাট, পত্তাশী ও বালিপাড়া ইউনিয়নে কচা ও বলেশ্বর নদীর তীরবর্তী ক্ষতিগ্রস্ত ভেড়িবাঁধ পুনর্নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের বরিশালের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রমজান আলী, পিরোজপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী সাইদ আহম্মেদ, ইন্দুরকানির ইউএনও রাজীব আহমেদ প্রমুখ। উদ্বোধনের পর দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

ভান্ডারিয়া থেকে ফজলুর রহমান জানান, জাতীয় পার্টি-জেপি’র চেয়ারম্যান ও পানিসম্পদ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি গতকাল দুপুরে ভান্ডারিয়া উপজেলা অডিটরিয়ামে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও উপকারভোগীদের মধ্যে অর্থ ও উপকরণ সামগ্রী বিতরণ করেন। এ সময় তিনি ধর্ম মন্ত্রণালয় হতে উপজেলার বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের নামে বরাদ্দকৃত নগদ অর্থের চেক, পানিসম্পদ মন্ত্রীর ঐচ্ছিক তহবিল হতে উপজেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং সুবিধাবঞ্চিত অসহায় ব্যক্তিদের মাঝে বরাদ্দকৃত অর্থের চেক, সুবিধাবঞ্চিত অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত ঢেউটিন ও নগদ অর্থ এবং মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয় হতে দুঃস্থ ও অসহায় মহিলাদের নামে প্রাপ্ত পা-চালিত সেলাই মেশিন বিতরণ করেন। এরপর মন্ত্রী ভান্ডারিয়া উপজেলা পরিষদ ও পৌরসভার উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির পৃথক সভায় যোগ দেন। উভয় সভায় সভাপতিত্ব করেন ভান্ডারিয়ার ইউএনও শাহীন আক্তার সুমী। সভায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ, ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ ও পৌর কাউন্সিলরগণ উপস্থিত ছিলেন।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

কাঠালিয়া যাবেন আজ

কাঠালিয়া (ঝালকাঠি) সংবাদদাতা জানান, পানিসম্পদ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু আজ শুক্রবার ঝালকাঠির কাঠালিয়ায় যাবেন। তিনি জাতীয় পার্টির (জেপি) কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ঝালকাঠি জেলা সভাপতি এডভোকেট মো. এনামুল ইসলাম রুবেলের আমন্ত্রণে তার গ্রামের বাড়ি জেলার কাঠালিয়া উপজেলার আওরাবুনিয়ার মুন্সিরাবাদ গ্রামের ‘মুক্তিযোদ্ধা ভবনে’ নৈশভোজে অংশগ্রহণ করবেন। এ সময় জেপির কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ এবং মন্ত্রীর একান্ত সচিব, জনসংযোগ কর্মকর্তা, ব্যক্তিগত কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ সফরসঙ্গী হিসাবে উপস্থিত থাকবেন।

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by