logo

বুধবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৮, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ০৮ শাবান ১৪৩৯

বাংলাদেশের সাংবাদিকদের দুই ভীতি: জঙ্গিবাদ ও তথ্যপ্রযুক্তি আইন
২৫ এপ্রিল, ২০১৮
সাংবাদিকদের আন্তর্জাতিক সংগঠন রিপোটার্স উইদাউথ দ্য বর্ডার-এর প্রকাশিত বার্ষিক প্রতিবেদনে বাংলাদেশের তথ্য প্রযুক্তি আইনের সমালোচনা করা হয়েছে। সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় সোচ্চার ওই সংগঠন বলছে, ইসলামী জঙ্গির হাতে খুন হওয়া কিংবা সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি আইনের বলি হয়ে কারাভোগের ভয়ে দেশের সাংবাদিক-ব্লগাররা স্ব-আরোপিত সেন্সরশিপের মধ্যে রয়েছেন। রিপোটার্স উইদাউথ দ্য বর্ডার-এর তালিকায় সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান গত বারের মতোই ১৪৬ তম স্থানে। তালিকার সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতায় শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে নরওয়ে। আর তালিকায় সবার নিচে ১৮০তম স্থানে জায়গা হয়েছে উত্তর কোরিয়ার।

প্রতিবছরই বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন দেশের সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা-সূচক প্রকাশ করে আরএসএফ। সূচকে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতাকে পাঁচটি পর্যায়ে ভাগ করে তারা। সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলো ব্ল্যাকলিস্টেড বা কালোতালিকাভুক্ত হয়। এর চেয়ে অপেক্ষাকৃত কম ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে রাখা হয় লাল তালিকায়। কিছুটা ভালো অবস্থানে থাকা দেশগুলো চিহ্নিত হয় হলুদ রং দিয়ে। আর যে সব দেশ সংবাদমাধ্যমের পূর্ণাঙ্গ স্বাধীনতা ভোগ করে, সেই দেশগুলো অন্তর্ভূক্ত হয় সাদা তালিকায়। এবারের তালিকাতেও অপেক্ষাকৃত কম ঝুঁকিপূর্ণ দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অবস্থান হয়েছে লাল তালিকায়।
প্রকাশিত প্রতিবেদনের বাংলাদেশ অংশে বলা হয়েছে, আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ একটি সেক্যুলার দেশ হলেও সেখানে সংবিধান ও ইসলামের সমালোচনা ভালো চোখে দেখা হয় না। দেশের সংস্কৃতিকে বহুত্ববাদী আখ্যা দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে মহামারির মতোন করে সাংবাদিক নিপীড়নের ঘটনা এবং সেইসব ঘটনায় দায়ীদের দায়মুক্তির সংস্কৃতির কারণে সংবাদমাধ্যম রাষ্ট্র ও স্বআরোপিত সেন্সরশিফের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। প্রতিবেদনে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের সমালোচনা করে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে ২৫ সাংবাদিকসহ কয়েকশ ব্লগার ওই আইনে মামলার কবলে পড়েছেন।

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by