logo

মঙ্গলবার, ১৫ মে ২০১৮, ০১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৮ শাবান ১৪৩৯

২ ঘণ্টাতেই ভোট শেষ!
১৫ মে, ২০১৮
নিউজ ডেস্ক
খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে জোর করে জালভোট দেয়ার অভিযোগে ২৪নং ওয়ার্ডের ইকবাল নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কেন্দ্রে মাত্র দুই ঘণ্টায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ৮টায় সাতটি বুথে একযোগে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। এর দুই ঘণ্টা পর সকাল ১০টার দিকে একদল দুর্বৃত্ত কেন্দ্রে জোর করে ঢুকে জালভোট দিয়ে চলে যান। এর পরই নিরুপায় হয়ে কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছেন প্রিসাইডিং কর্মকর্তা।

তবে সেই সময়ে ঘটনাস্থলে বিএনপির মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের কোনো এজেন্টকে দেখা যায়নি।

ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা খলিলুর রহমান জানান, সকাল ৮টায় স্বাভাবিকভাবেই শুরু হয় ভোটগ্রহণ। এর দুই ঘণ্টা পর একদল দুর্বৃত্ত এসে অস্ত্রের মুখে জালভোট দিয়ে চলে যায়। এ সময় পুলিশকে ডেকেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

পরে বাধ্য হয়েই ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করা হয়। এই কেন্দ্রে মোট ভোটার ২১২৪ জন।

এ ঘটনার পর খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. ইউনূস আলী দুপুর পৌনে ১২টার দিকে কেন্দ্র পরিদর্শন ছাড়াও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ করেন।

এদিকে এখনও হাজারো ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগে কেন্দ্রের বাইরে অপেক্ষা করছেন। ভোট দিতে না পেরে তারা বিক্ষোভ করছেন।

রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, খুলনা সিটি কর্পোরেশনে প্রথমবারের মতো মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

মেয়র পদে যে পাঁচজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তারা হলেন- আওয়ামী লীগের তালুকদার আবদুল খালেক (নৌকা), বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির এসএম শফিকুর রহমান (লাঙল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের অধ্যক্ষ মাওলানা মুজ্জাম্মিল হক (হাতপাখা) এবং বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবির মিজানুর রহমান বাবু (কাস্তে)।

৪৬ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এ নগরীতে মোট ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ২৮৯টি ও ভোটকক্ষ ১ হাজার ৫৬১ জন। নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন, যার মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ জন ও নারী ভোটার ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন।

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by