logo

শনিবার, ১৯ মে ২০১৮, ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ০২ রমজান ১৪৩৯

নিউ ইয়র্কের স্কুলগুলোতে দ্বিতীয় ভাষা বাংলা
১৯ মে, ২০১৮
অনলাইন ডেস্ক
শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে ইংরেজির পাশাপাশি বাংলা ভাষা অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছে। আর এটি করা হচ্ছে ‘দ্বৈত ভাষা’ (ডুয়েল ল্যাঙ্গুয়েজ) নামের একটি কর্মসূচির আওতায়। এ কর্মসূচি অনুযায়ী, নিউ ইয়র্ক সিটির স্কুলগুলোতে ইংরেজির পাশাপাশি দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে দক্ষিণ এশিয়ার কোনো একটি দেশের ভাষা অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

নিউ ইয়র্ক সিটির ‘ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশন’ (ডিওই) জানায়, এ কর্মসূচির আওতায় শিক্ষার্থীদের সিলেবাসের অর্ধেক থাকবে ইংরেজিতে। বাকি অর্ধেক হতে হবে দক্ষিণ এশিয়ার কোনো একটি ভাষায়। ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থী, মাতৃভাষা হিসেবে ইংরেজির বাইরে অন্য কোনো ভাষা ব্যবহার করে—এমন অভিবাসী শিক্ষার্থী এবং ইংরেজি মাতৃভাষার শিক্ষার্থীরা এ কর্মসূচিতে শিক্ষাগ্রহণ করতে পারবে।

কর্মসূচির উদ্বোধন হবে আগামী সেপ্টেম্বরের শুরুতে; কুইন্স শহরের ‘লুইস এফ সিমিওনি স্কুল’-এ। সেখানে ইংরেজির পাশাপাশি দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে বাংলা অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

সব স্কুলে এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের দায়িত্বে আছেন দুই আইনপ্রণেতা গ্রেস মেং ও জো ক্রাউলে। গত বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে তাঁরা জানান, সব স্কুলে এ কর্মসূচি চালুর ব্যাপারে ধারাবাহিকভাবে আহ্বান জানানো হবে।

মেং ও ক্রাউলের এ ক্যাম্পেইন শুরু হয় ২০১৫ সালে। তাঁদের যুক্তি ছিল, এর মধ্য দিয়ে নিউ ইয়র্কে বসবাসকারী দক্ষিণ এশিয়ার শিশুরা ব্যাপক লাভবান হবে। তৎকালীন ‘স্কুল চ্যান্সেলর’ কারমেন ফারিনাকে এক চিঠিতে তাঁরা লেখেন, ‘দ্বৈত ভাষার’ শিক্ষাপদ্ধতিতে চায়নিজ ও জাপানি থেকে শুরু করে হাইতির ভাষা থাকলেও দক্ষিণ এশিয়ার কোনো ভাষা তাতে স্থান পায়নি।

সম্প্রতি দুই আইনপ্রণেতার আহ্বানে সাড়া দেন বর্তমান ‘স্কুল চ্যান্সেলর’ রিচার্ড কারানজা। প্রতিক্রিয়ায় আইনপ্রণেতা মেং এক বিবৃতিতে বলেন, ‘এই উদ্যোগ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য একটি আশীর্বাদ।

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by