logo

বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮,৩ শ্রাবণ ১৪২৫, ৪ জিলকদ ১৪৩৯

জনগণের সম্পদ বাংলাদেশ ব্যাংকে ঠিকই আছে: অর্থ প্রতিমন্ত্রী
১৮ জুলাই, ২০১৮
নিউজ ডেস্ক
অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের দেওয়া সোনা জমা রাখার সময় সোনা ৪০ শতাংশই ছিল। কিন্তু ইংরেজি–বাংলার হেরফেরে সেটা ৮০ শতাংশ লিখে ভুলবশত নথিভুক্ত করা হয়েছিল। ৮০ এবং ৪০-এ ক্লারিক্যাল মিস্টেক হয়েছে। জনগণের সম্পদ বাংলাদেশ ব্যাংকে ঠিকই আছে, সঠিক আছে।

বুধবার (১৮ জুলাই) দুপুরে সচিবালয়ে বাংলাদেশ গভর্নর ফজলে কবির এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. ইউনুসুর রহমানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাইরে যাওয়ার সম্ভাবনা মোটেও নেই। ছয় স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আছে ভল্টে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর নিজেও ভল্টে যেতে পারেন না সিস্টেমের বাইরে। দুই-তিন জায়গায় ক্লিয়ারেন্স নিতে হয় তাকে। আপনি নিশ্চিত থাকুন, কিছুই বাইরে যায়নি। সামান্য যে, ৪০ থেকে ৮০ লেখা হল। আমিও মাঝে মাঝে বাংলায় লিখতে গেলে গণ্ডগোল হয়ে যায়।

‘তবে আমরা বিষয়টিকে ছোট করে দেখছি না। কারণ, সামান্য ফাঁকও অনেক বড় হয়ে যায়। আমাদের লেভেলে বা অন্য কোনো সংস্থাকে দিয়ে এটাকে আরও পর্যালোচনা করবো। এতে বাংলাদেশ ব্যাংক ভীত নয়। আমাদের মনে কোনো সংশয় নেই। এ ঘটনা কেন হল তা আমরা দেখবো’, বলেন প্রতিমন্ত্রী।

এনবিআরের প্রতিবেদন নিয়ে অনেক চিঠি চালাচালি হয়েছে বলেও জানান তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি সরকারের উচ্চ পর্যায়ে জানানো হবে, যা যা দেখার তা দেখা হবে। অসস্তির ব্যাপার হল, যে মাত্রায় এটা গতকালকে (১৭ জুলাই) প্রকাশ করা হল, তা বাস্তবভিত্তিক নয়। এসময় সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা সুন্দরভাবে খবর পরিবেশন করেন, এটা আপনাদের দায়িত্ব।

তিনি বলেন, আমরা সব সিস্টেমেই পর্যালোচনা করবো। পর্যালোচনা করে যদি কারো সামান্যতম গাফিলতিও পাই, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ শাস্তির ব্যবস্থা করব।

সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা দেখার বিষয় আছে। আমি মন্ত্রীকে ব্রিফ করবো। করার পর তদন্ত কমিটি হবে, নাকি পর্যালোচনা কমিটি হবে, তা আমি এ মুহুর্তে আপনাদের বলতে পারছি না। তবে, এটা দেখা হবে। অবশ্যই আইনানুগভাবেই দেখা হবে।

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by