logo

সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আসন বণ্টন চলতি সপ্তাহে
প্রার্থী তালিকার খসড়া তৈরি করেছে শরিক দলগুলো * বিএনপির তালিকা পেলেই চূড়ান্ত হবে স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে
১৯ নভেম্বর, ২০১৮
নিউজ ডেস্ক
চলতি সপ্তাহে আসন ভাগাভাগির কাজটি শেষ করতে চায় ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলো। এরই মধ্যে এই জোটের শরিক- গণফোরাম, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি), নাগরিক ঐক্য এবং কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ তাদের নিজ নিজ দলের প্রার্থীদের খসড়া তালিকা তৈরি করেছে।

প্রার্থী ঠিক করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টভুক্ত জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়াও।

এখন জোটের প্রধান শরিক দল বিএনপির চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকার জন্য অপেক্ষা করা হচ্ছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলোর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে এ তথ্য।

এই জোটের একাধিক নেতা রোববার যুগান্তরকে বলেন, ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন। হাতে সময় খুব একটা নেই। যত দ্রুত শরিক দলগুলোর মধ্যে আসন ভাগাভাগির কাজটি শেষ করা যায়, ততই ভালো। তারা আরও বলেন, আসন ভাগাভাগির বিষয়টি ফয়সালা হলে পুরোদমে নির্বাচনী প্রচারণায় নামতে পারবেন প্রার্থীরা।

শরিক দলগুলোর মধ্যে যে দলের প্রার্থীকে যে আসনে মনোনয়ন দেয়া হবে, একযোগে সবাই মিলে সেই প্রার্থীর জয় নিশ্চিত করতে নেমে পড়বেন তারা। এর আগে আসনভিত্তিক কমিটিও গঠন করা হবে।

জানতে চাইলে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না রোববার যুগান্তরকে বলেন, ‘আমরাসহ আমাদের শরিক দলগুলো এরই মধ্যে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করেছি। তবে এ তালিকাই শেষ কথা না। সবাই একসঙ্গে বসে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করব। নির্বাচনে লড়াই করে যারা জয়ী হয়ে আসতে পারবেন, তাদেরই জাতীয় ঐক্যফ্যন্টের পক্ষ থেকে মনোনয়ন দেয়া হবে। এখানে অনড় থাকার যেমন কিছু নেই, রাগ-অভিমানেরও কিছু নেই। বৃহত্তর স্বার্থে আমরা যে যার মতো করে ছাড় দেব।

বড় দল হিসেবে বিএনপিও ছাড় দেবে। যাতে ভোটের লড়াইয়ে জয়ী হয়ে আসতে পারি।’

জানা গেছে, প্রার্থী তালিকা নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ভেতরে-বাইরে চলছে নানা আলোচনা। জোটের শরিক কোন দল কতটি আসনে লড়বে- বিষয়টির এখনও সুরাহা হয়নি। এ নিয়ে চিন্তায় আছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। বিশেষ করে জোটভুক্ত কয়কটি দলের শীর্ষ নেতার আসন সমঝোতার বিষয়টি এখনও ঝুলে আছে। এ অবস্থায় আসন ভাগাভাগির বিষয়ে দ্রুত ফয়সালার জন্য প্রধান শরিক দল বিএনপির সঙ্গে বসতে চান তারা। কিন্তু বিএনপিই এখন পর্যন্ত নিজেদের প্রার্থী তালিকা তৈরি করতে পারেনি। এ কারণে অপেক্ষা করতে হচ্ছে শরিকদের।

যদিও এরই মধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল মাহমুদুর রহমান মান্নার নেতৃত্বাধীন নাগরিক ঐক্য ৩৫ জনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে। জোটের আরেক শরিক দল আ স ম আবদুর রবের নেতৃত্বাধীন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি প্রকাশ করেছে ১৩২ জনের তালিকা।

আর গণফোরাম ১৮২ জনের তালিকা তৈরি করলেও কৌশলগত কারণে এখনই তারা এটি প্রকাশ করছে না। তবে দলটির শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন, অর্থনীতিবিদ ড. রেজা কিবরিয়ার মতো আরও বেশ কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যক্তি, অবসরপ্রাপ্ত আমলা, সেনা কর্মকর্তা এবং সুশীলসমাজের প্রতিনিধি দলটির হয়ে নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এ কারণে আরও দু’দিন সময় নিয়ে গণফোরাম তাদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আরেক শরিক দল বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগও তাদের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করেছে। আজ-কালের মধ্যে তারা তাদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবেন বলে জানিয়েছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান খোকা।

জোটের আরেক শরিক জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার পক্ষ থেকে মাত্র একজন ধানের শীষের হয়ে এবারের নির্বাচনে অংশ নেবেন। এটি এরই মধ্যে চূড়ান্ত হয়ে গেছে।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন রোববার যুগান্তরকে বলেন, ‘আমরা আমাদের তালিকা তৈরি করেছি। অন্যরাও তাদের দলের প্রার্থী তালিকা তৈরি করেছে। বিএনপিও তালিকা তৈরি করছে। এরপর সবাই মিলে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করব।’

তিনি বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে শরিক দলগুলো যে তালিকা দিয়েছে, তা আরও কাটছাঁট হবে। বৃহত্তর স্বার্থেই এটি করা হবে। যাতে ভোটের লড়াইয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা জয়ী হয়ে আসতে পারেন।’

সর্বশেষ খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by