logo

রবিবার ২৫ জুন ২০১৭, ১১ আষাঢ় ১৪২৪, ২৯ রমজান ১৪৩৮

বিএনপি মহাসচিবের গাড়ি বহরে হামলা
১৮ জুন, ২০১৭
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:
চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়িবহরে হামলা ও ভাঙচুর করা হয়েছে। এতে মির্জা ফখরুল, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা আহত হয়েছেন। রাঙামাটি যাওয়ার পথে এই হামলা করা হয়। আজ রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাঙ্গুনিয়ার ইছাখালী এলাকায় এ হামলা চালানো হয়। এ ঘটনার জন্য আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের দায়ী করেছে বিএনপি।
রাঙামাটি বিএনপির নেতারা বলেন, পাহাড় ধসের ঘটনায় হতাহতদের প্রতি সহমর্মিতা জানাতে এবং সহযোগিতা করতে বিএনপির মহাসচিবের নেতৃত্বাধীন একটি দল রাঙামাটিতে আসছিল। চট্টগ্রাম থেকে গাড়িবহরটি রাঙামাটি আসার পথে ইছাখালীতে এ হামলার ঘটনা ঘটে।‘আওয়ামী লীগ নেতা হাছান মাহমুদের সমর্থকরা এ হামলা চালিয়েছে। হামলায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ডা. শুভসহ কয়েকজন আহত হয়েছেন। তাঁদের গাড়ি ভাঙচুর এবং এলোপাতাড়ি মারধর করা হয়েছে।’
ঘটনার পর বিএনপির প্রতিনিধিদলটি রাঙামাটি না গিয়ে চট্টগ্রামে ফিরেছে। পরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে বেলা একটার দিকে সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল তাদের ওপর হামলার বর্ণনা দেন। তিনি বলেন, তখন মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছিল। হঠাৎ করে ৩০ থেকে ৪০ জন লাঠিসোটা ও পাথর নিয়ে আক্রমণ করলো। প্রথমেই গাড়ির উইন্ডস্ক্রিন বিরাট একটা পাথর দিয়ে ভেঙে ফেলল। এরপর হামলা চালাল। আজ রোববার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে বসে জেলার রাঙ্গুনিয়ায় তার গাড়িবহরে হামলার এমনভাবেই বর্ণনা দিলেন তিনি। পাহাড় ধসের ঘটনায় রাঙ্গামাটিতে ত্রাণ নিয়ে যাওয়ার পথে এই হামলা হয় বলে অভিযোগ বিএনপির। আর বেলা সাড়ে ১০টার দিকে এই ঘটনার পর রাঙ্গামাটিতে না গিয়ে চট্টগ্রাম ফিরে আসে বিএনপির গাড়িবহর।
ফখরুল বলেন, আমাদের দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী রক্তাক্ত হয়েছেন। আমি আঘাত পেয়েছি, আরও কয়েকজন আঘাত পেয়েছেন। এই হামলাকে কোনো ব্যক্তির ওপর হামলা হিসেবে দেখছেন না জানিয়ে তিনি বলেন, এই আঘাত গণতন্ত্রের প্রতি আঘাত। যারা মুক্ত চিন্তা করেন, সরকারের বিরোধিতা করেন তাদের প্রতি আঘাত। হামলার জন্য আওয়ামী লীগকে দায়ী করে তিনি বলেন, এই ঘটনার মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগের চরিত্র উন্মোচিত হয়েছে। আমাদের এই অবস্থা হলে সাধারণ মানুষের অবস্থা কী হয়েছে?। তিনি আরও বলেন, এটা একটা ভয়াবহ ঘটনা। জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে এটা প্রতিরোধ করতে হবে।
এদিকে হামলার প্রতিবাদে সোমবার রাজধানীর থানায় থানায় এবং সব মহানগর ও জেলা পর্যায়ে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে বিএনপি। রাজধানীতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এই হামলাকে নিন্দনীয় বলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, সেটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশ প্রধান, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা হয়েছে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।
এর আগে বিএনপি জানায়, এই গাড়িবহরে হামলায় মির্জা ফখরুল ও আমির খসরুর হাত গাড়ির গ্লাসের আঘাতে কেটে গেছে। কাপ্তাই উপজেলার বিএনপির চেয়ারম্যান গুরুতর আহত হয়েছেন। এছাড়াও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসেম বক্কর, চট্টগ্রাম বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীমেরও আঘাত লেগেছে।

সর্বশেষ খবর

লিড নিউজ এর আরো খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by