logo

বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারি ২০১৬ . ১ মাঘ ১৪২২ . ৩ রবিউস সানি ১৪৩৭

মাধবপুরে একটি ব্রিজের অভাবে লক্ষাধিক মানুষের দুর্ভোগ
১৪ জানুয়ারি, ২০১৬

হবিগঞ্জ : মাধবপুরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সোনাই নদীর বাঁশের সাঁকোতে পার হচ্ছে ছাত্র-ছাত্রীসহ এলাকাবাসী - আজকের পত্রিকা

হীরেশ ভট্টাচার্য্য হিরো, মাধবপুর
হবিগঞ্জে মাধবপুর উপজেলা সদরে সোনাই নদীর উপর একটি ব্রিজ নির্মাণ না হওয়ায় যাতায়াতে স্কুল, কলেজের ছাত্র-ছাত্রীসহ এলাকাবাসীর নানা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বছরের পর বছর ধরে অত্র এলাকার জনগণ মাধবপুর থানা সংলগ্ন পূর্ব দিকে সোনাই নদীর উপর ব্রিজ নির্মাণ দাবী করে আসলেও তা উপেক্ষিত রয়ে গেছে। যার ফলে এলাকাবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও হতাশা রয়েছে। শুকনো মৌসুমে মারাত্মক দুর্ঘটনার ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো ও বর্ষা মৌসুমে নৌকা দিয়ে পরাপার করতে হয় স্কুল কলেজ ও বিদ্যালয়ের ছোট ছোট শিক্ষার্থীরা সহ এখানকার বাসিন্দারদের। নতুবা প্রায় এক কিলোমিটার রাস্তা ঘুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার সাতবর্গ এলাকার হাইওয়ে রোড পার হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উপজেলা সদরে আসতে হচ্ছে এলাকাবাসীদের।

ফলে প্রতিনিয়ত একদিকে হাইওয়ে রাস্তায় যানজটের সৃষ্টি হয় অন্যদিকে মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনা সম্ভাবনা রয়েছে। এখানে সোনাই নদীর উপর একটি ব্রিজ নির্মাণ হলে মাধবপুর পৌরসভার ২টি ওয়ার্ডসহ দক্ষিণ পূর্ব অঞ্চলের অর্ধলক্ষাধিক সাধারণ মানুষের চলাচলের সুবিদা হত। এছাড়াও উপজেলা সদরে ৫/৬টি স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীসহ অত্র এলাকার কৃষকদের উৎপাদিত শাকসবজিসহ কৃষিপণ্য সহজে স্থানীয় বাজারের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে পরিবহনের সুবিদা হত। জানা যায়, ইতিপূর্বে বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারপারের সময় প্রায়ই ছাত্র-ছাত্রীদের নানা দুর্ঘটনা ঘটেছে।

এছাড়াও ৪/৫টি ইউনিয়নের রাস্তার সংযোগস্থল ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সাতবর্গ হওয়ায় দুই জেলার বাসিন্দাদের লোকজনের মধ্যে ঝগড়া হলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার লোকজনের বাধার মুখে পড়তে হয় ঐ এলাকার জনগনকে। মাধবপুর মনতলা সড়ক ও মাধবপুর-হরষপুর সড়ক থেকে একটি বাই পাস রাস্তা থাকলেও ব্রীজ না থাকার কারণে ঐ রাস্তায় যান চলাচল করতে পারছে না। সরকারের কাছে এলাকাবাসীর দাবী অচিরেই যেন এই ব্রীজটি নির্মাণ করা হয়।

এ ব্যাপারে স্থানীয় পৌর মেয়র হিরেন্দ্র লাল সাহার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সোনাইনদীর উপর একটি ব্রীজের জন্য আমি এলজিইডির পিডিসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে একাধিকবার পত্র প্রেরণসহ যোগাযোগ করে আসছি। আশা করি আগামী অর্থ বছরের মধ্যেই একটি ব্রীজ টেন্ডার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। 

 

সর্বশেষ খবর

সারাবাংলা এর আরো খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by