logo

বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০১৬ . ১৫ মাঘ ১৪২২ . ১৭ রবিউস সানি ১৪৩৭

মাদারীপুরে ২ স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর বিষপানে হত্যা
মামলায় হাইকোর্টের নির্দেশে মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন
২৮ জানুয়ারি, ২০১৬

মাদারীপুর : নিহত দুই স্কুলছাত্রী হ্যাপি ও সুমাইয়ার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য গতকাল কবর থেকে উত্তোলন করা হয় - আজকের পত্রিকা

মাদারীপুর প্রতিনিধি
মাদারীপুরে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় হাইকোর্টে দায়ের করা এক রিট আবেদনের আদেশে নিহত দুই স্কুলছাত্রী হ্যাপি ও সুমাইয়ার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বুধবার দুপুরে কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। হ্যাপির মায়ের দায়ের করা এক রিটের প্রেক্ষিতে গত ১৩ ডিসেম্বর হাইকোর্টের বিচারপতি ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আমির হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

এ ঘটনায় ১৫ আগস্ট সুমাইয়ার বাবা ও ১৩ সেপ্টেম্বর হ্যাপির মা জেলা জজ আদালতে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। তবে এ ঘটনার ময়নাতদন্তে ধর্ষণের বিষয়ে কিছু উল্লেখ করা হয়নি। তাই ধর্ষণের বিষয়ে তদন্ত চেয়ে উচ্চ আদালতে আবেদন করেন হ্যাপির মা। মামলাটির তদন্তের ভার বর্তমানে সিআইডির হাতে দেয়া হয়েছে।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে মাদারীপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বদরুদ্দোজা শুভ ও পুলিশের সিআইডি বিভাগের একটি দল। পরে স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে লাশ উত্তোলন করে মাদারীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে নিয়ে আসা হয়। এ সময় হৃদয়বিদারক অবস্থার সৃষ্টি হয়। উল্লেখ্য, গত ১৩ আগস্ট বিকেলে স্কুলে প্রাইভেট পড়তে যায় মাদারীপুর সদর উপজেলার মস্তফাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী হ্যাপি ও সুমাইয়া আক্তার।

বিকেলেই দুজনকে অচেতন অবস্থায় মাদারীপুর সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান কয়েকজন যুবক। চিকিৎসা শুরুর পর সন্ধ্যার আগেই হ্যাপি ও সুমাইমা মারা গেলে ওই যুবকরা পালিয়ে যায়।

সর্বশেষ খবর

সারাবাংলা এর আরো খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by