logo

বুধবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ . ২১ মাঘ ১৪২২ . ২৩ রবিউস সানি ১৪৩৭

মাধবপুরে সংরক্ষিত বনাঞ্চলে জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে
০৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬
হীরেশ ভট্টাচার্য্য হিরো, মাধবপুর (হবিগঞ্জ)
হবিগঞ্জের মাধবপুরে বন বিভাগের সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে গাছপালা পাচারের ফলে বনভূমি উজাড় হয়ে যাচ্ছে। সংরক্ষিত বন ভূমি থেকে মূল্যবান বনজ সম্পদ অবৈধপথে পাচারের ফলে পরিবেশের ভারসাম্যের পাশাপাশি বনভূমি বৃক্ষহীন হয়ে পড়েছে। মাধবপুর উপজেলার রঘুনন্দন রেঞ্জের আওতায় শাহপুর রেঞ্জের শাহজীবাজার, শালটিলা, বনভূমির বিশাল অঞ্চলজুড়ে বিভিন্ন প্রজাতির প্রাকৃতিক ও সৃজিত বনায়ন রয়েছে। কিন্তু এসব বনভূমি থেকে একশ্রেণির অসাধু বনরক্ষীদের পরোক্ষ মদদে বন ভূমি থেকে মূল্যবান গাছপালা বনদস্যুরা কেটে বনভূমি উজাড় করে ফেলেছে। ভারত সীমান্তবর্তী ও বনভূমি এলাকার নিকটবর্তী স্থানে বনভূমির অনুমোদন ছাড়া অসংখ্য করাতকল গড়ে ওঠায় বনের গাছপালা বনদস্যুরা সহজেই করাতকলে মজুদ করে রেখে দেশের বিভিন্ন স্থানে ট্রাক, ট্রাক্টরযোগে পাচার করছে। বনভূমি এলাকায় পাহাড়ের ভিতর গাছ কেটে গাছের গোড়া উপড়ে ফেলতে রয়েছে বনরক্ষীদের নিজস্ব লোকবল। বনরক্ষীদের প্রচলিত প্রবাদ রয়েছে ‘মোথা থাকলে ব্যথা আছে’। এ কারণে ঊর্ধŸতন কর্মকর্তাদের ফাঁকি দিতে স্থানীয় বনরক্ষীরা বনের ভেতর গাছ কাটা হলে এগুলো গোড়াসহ উপড়ে ফেলা হয়। এদিকে শালটিলা, শাহপুর ও শাহজিবাজার বনভূমি থেকে মূল্যবান পুরাতন গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে বনদস্যুরা। বনজ সম্পদ রক্ষার জন্য বনরক্ষীরা থাকলেও তারা বনদস্যুদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে গাছপালা পাচার করছে। শালটিলা বনভূমিতে বহু বছরের পুরাতন সেগুনসহ বিভিন্ন মূল্যবান বৃক্ষরাজি দিনে দিনে হ্রাস পেয়ে বনভূমি বৃক্ষহীন হয়ে পড়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন অর্থবছরে এসব বনভূমিতে প্রাকৃতিক ও সামাজিকভাবে বনায়ন করা হলেও প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচর্যার অভাবে বাগানগুলো ব্যর্থ হতে চলছে। বনবিভাগের অর্থায়নে নতুন বাগান বনায়নের জন্য প্রতি বছর নার্সারি থেকে বিভিন্ন প্রজাতির ওষুধি, ফলদ, ভেষজ চারা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও বনরক্ষীদের উদাসীনতার কারণে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হচ্ছে না। বনবিভাগে সৃজিত বনায়নের আগাছা দমনের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ থাকলেও বনায়নের আগাছা দমনে কোনো পদক্ষেপ নেই। রঘুনন্দন, শালটিলা, বনভিটে বিভিন্ন সময়ে মূল্যবান আগড় গাছসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপণ করা হলেও আগাছা দমন না করায় জঙ্গলে ভরে গেছে। মাঝে মধ্যে বনবিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের খুশি করতে বেছে বেছে কিছু এলাকায় ভালো বনায়ন করা হয়। কিন্তু বনের ভিতর বহু অঞ্চল রয়েছে। যেখানে বনভূমি বৃক্ষহীন হয়ে পড়েছে বা নতুন বাগান বনায়নের কথা থাকলেও  এগুলো রয়েছে মাত্র কাগজে কলমে। সংরক্ষিত বনাঞ্চলে সাধারণ মানুষের প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত থাকলেও প্রতিদিন বনের ভিতর দল বেঁধে শত শত মানুষ বনে প্রবেশ করে অবাধে বনের ছোট ছোট গাছপালা কেটে বন ভূমি বিনষ্ট করছে। তাদের অত্যাচারে বনভূমি এখন ক্ষতবিক্ষত। যারা অবাধে বনে প্রবেশ করছে তারা বনরক্ষীদের নির্দিষ্ট হারে উৎকোচ দিয়ে থাকে। এ কারণে সাধারণ মানুষ বনে ঢুকে নিভর্য়ে বনজসম্পদ পাচার করে নিয়ে যাচ্ছে।

সর্বশেষ খবর

সারাবাংলা এর আরো খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by