logo

বৃহস্পতিবার, ১৪ জুন ২০১৮, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৮ রমজান ১৪৩৯

শিরোনাম

সাউথখালীর চরাঞ্চলে দেড় শতাধিক পরিবারে ঈদ আনন্দ নেই
১৪ জুন, ২০১৮
নিউজ ডেস্ক
ইন্দুরকানীর সাউথখালী চরাঞ্চলের মানুষের নেই ঈদ আনন্দ। তাই সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের দাবি জানিয়েছেন সাউথখালী চরের সাত সন্তানের জননী ফরিদা বেগম। আব্দুল হক ফরাজীর দ্বিতীয় স্ত্রী সে। আব্দুল হক একজন দিনমজুর। তার প্রথম স্ত্রীর ঘরেও রয়েছে ছয় সন্তান। ফরিদা বেগম সাউথখালী চরের আবাসনের একটি কক্ষে থাকেন। ফরিদার পরিবারের মতোই ঈদ আনন্দের অনিশ্চয়তায় রয়েছে সাউথখালী চরের দেড় শতাধিক পরিবার। তাদের সবাই দিনমজুর ও জেলে। এই চরে যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম নৌকা। দুর্গম এলাকা হওয়ায় এই চরে জনপ্রতিনিধির যাতায়াতও কম। সরকারি সহযোগিতা হিসেবে ঈদ উপলক্ষে হাতেগোনা কয়েকটি পরিবার ভিজিএফ এর ১০ কেজি করে চাল পেয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নৌকা থেকে উঠতেই একটি ইংরেজি নববর্ষের ছেঁড়া ফাটা ব্যানার চোখে পড়ে। ২০১৬ সালের শুভেচ্ছা জানিয়ে ছিলেন ওই এলাকার বর্তমান চেয়ারম্যান কবির হোসেন বয়াতী। তখন তিনি নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় ওই শুভেচ্ছা ব্যানারটি চরে স্থান পায়। নির্বাচিত হওয়ার পরে ওই চরে আর কোনো জনপ্রতিনিধি বা নেতার শুভেচ্ছার ব্যানার বা পোস্টার পৌঁছায়নি।

আক্ষেপ করে স্থানীয় আব্দুল মতি জানান, এহানে ভোটের সময় সব নেতারা আয়। ভোট গ্যালে আর কেউরে দেহি না। চরের মানুষরে কেউ জিগায় না। সরকারি অফিসাররা মাঝে মইদ্দে আইয়া দেইক্কা যায়। কিন্তু কোনো কাম অয় না। ঈদ আর কেমন হইবে? আর দশটা দিনের মতনই হইবে।

ইন্দুরকানী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুদ সাঈদী জানান, সাউথখালী চরে বসবাসকারীরা সবাই হতদরিদ্র। ঈদ উপলক্ষে তাদের কিছু পরিবারকে ভিজিএফ এর চাল বিতরণ করা হয়েছে। তবে প্রয়োজনের তুলনায় বরাদ্দ কম থাকায় সব পরিবারকে চাল দেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে চরের মানুষদের প্রতি সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসা খুব দরকার। তবেই চরবাসীদের মাঝে যোগ হবে ঈদ আনন্দ।

সর্বশেষ খবর

সারাবাংলা এর আরো খবর

আজকের পত্রিকা. কমের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by